ইউসুফ পাঠান সর্বশেষ আপডেট: Yusuf Pathan’s feet in Bengal, Adhir compared with which cricketer?

আর মাত্র কয়েক মুহূর্তের অপেক্ষা। তার পরেই প্রথমবার বহরমপুরে পা রাখবেন এই কেন্দ্রের তারকা তৃণমূল প্রার্থী ইউসুফ পাঠান। পাঠান আসছেন বহরমপুরে, তৃণমূলের জেলা কার্যালয়ে ভিড় বাড়ছে মানুষের। অধীরের সঙ্গে কড়া টক্কর দিতে তৃণমূলের নতুন তাস।

প্রার্থী হিসেবে ইউসুফের নাম ঘোষণা করা মাত্রই ‘বিদ্রোহী’ হয়ে ওঠেন হুমায়ুন। তবে অভিষেকের সঙ্গে সাক্ষাতের পর তার মন্তব্য পরিবর্তন করেছেন ইউসুফের পক্ষে প্রচার চালাবেন বলে জানিয়েছেন হুমায়ূন। তবে আজ থেকে নয়, রবিবার থেকে। তার আগে দুই দিনের জন্য দিল্লি যাবেন তিনি।

ইসুফকে এখন ক্রিকেট পিচ থেকে ভোটের মাঠে দেখা যাবে । এর আগে, ব্রিগেডের সমাবেশ থেকে প্রার্থী হিসেবে ভারতের জোড়া বিশ্বকাপজয়ীর নাম ঘোষণা করে চমকে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। এরপর প্রথমবারের মতো বাংলার মাটিতে পা রাখেন ইউসুফ। এদিকে, বহরমপুরে কংগ্রেস প্রার্থী হতে পারেন অধীর চৌধুরী। তৃণমূল এই কংগ্রেসের প্রবীণ নেতার বিরুদ্ধে ইউসুফকে দাঁড় করিয়ে একাধিক সংখ্যাক ভোটের গনিত মীমাংসার চেষ্টা করছে। তৃণমূল আশা করছে ইউসুফ ম্যাজিক সংখ্যালঘু ভোটারদের ঘাসফুলের দিকে টানবে। এদিকে অধীরকে বাজিমাত দিতে জনপ্রিয় মুখকে নামিয়ে মানুষের মনে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অন্যদিকে, লোকসভা ভোটে বহরমপুরে দলগত দ্বন্দ্বের প্রভাবের দিকেও নজর রাখছেন অভিষেক। ইউসুফ আসার আগে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ভরতপুর তৃণমূল বিধায়ক হুমায়ুন কবিরের সঙ্গে বৈঠক করেন। প্রার্থী হিসেবে ইউসুফের নাম ঘোষণা করা মাত্রই ‘বিদ্রোহী’ হয়ে ওঠেন হুমায়ুন। তবে অভিষেকের সঙ্গে নতুন ভাবে আবার সাক্ষাতের পর ইউসুফের পক্ষে প্রচার চালাবেন বলে জানিয়েছেন হুমায়ূন।

এর আগে 10 মার্চ, ইউসুফ পাঠান র‌্যাম্পে মমতার পিছনে হেঁটে এবং ব্রিগেডে মানুষের দিকে হাত নেড়ে রাজনীতিতে প্রবেশ করেছিলেন। তবে প্রার্থী হওয়ার পর ১০ দিন পশ্চিমবঙ্গে ছিলেন না। অবশেষে গতকাল তিনি কলকাতায় আসেন। গতকাল কলকাতায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে ইউসুফ বলেন, ‘কলকাতায় ফিরে ভালো লাগছে। আজ একটি মিটিং করব। আমাকে ভবিষ্যতে কিভাবে এগিয়ে যেতে হবে তার একটা পরিকল্পনা করব। এরপর ইউসুফকে প্রশ্ন করা হয় তার প্রতিপক্ষ অধীর চৌধুরীকে নিয়ে। তবে কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতাকে নিয়ে কোনো কথাই খরচ করতে চাননি ইউসুফ। সোজা হেঁটে গাড়িতে উঠার চেষ্টা করেন। পরে অবশ্য হোটেলের সামনে সাংবাদিকদের কাছে এ নিয়ে মুখ খোলেন ইউসুফ। বিভিন্ন বাংলার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউসুফ অধীর সম্পর্কে বলেছেন, “সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় আমাকে বলেছিলেন যে বহরমপুরে অধীর চৌধুরীর মুখোমুখি হওয়া ব্রেট লির মুখোমুখি হওয়ার মতো।” পাঠান আরও বলেন, “নতুন ইনিংস শুরু করার আগে আমি উত্তেজিত।” কলকাতা আমার বাড়ি। আমি যখন কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলেছিলাম, আমি দ্রুততম ফিফটি করেছিলাম এবং সবাই তা দেখেছিল। আমি অধীর রঞ্জন চৌধুরীর বিরুদ্ধে ভালো লড়াই দেব, লড়াইটা হবে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়া ম্যাচের মতো।

জানা গিয়েছে, আজই বহরমপুর যেতে পারেন ইউসুফ। সেখানে তৃণমূলের জেলা কার্যালয়ে বৈঠক করবেন ইউসুফ। এদিকে ইউসুফের জন্য ‘পিচ’ তৈরি করছেন জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। তারকা সাবেক প্রাক্তন এই ক্রিকেটারের জন্য অনেক লোক জনের জাঁকজমক সমাবেশে ও আয়োজন করা হচ্ছে। স্লোগান দেওয়া হবে ‘খেলা হবে’। এদিকে, আজ তৃণমূলের বহরমপুর-মুর্শিদাবাদ সাংগঠনিক জেলার রাজ্য স্তরের নেতা এবং নির্বাচিত প্রতিনিধিদের পাটি অফিসের কাছথেকে ‘ফতোয়া’ জারি করেছে দল। প্রত্যেক নেতাকে তার এলাকা থেকে বিপুল সংখ্যক সমর্থক আনতে ‘নির্দেশ’ দেওয়া হয়েছিল, এমন দাবি করা হয়েছে। তৃণমূল নেতাদের এমন নির্দেশ দিয়েছেন জেলা চেয়ারম্যান ও সভাপতি বলে জানা গিয়েছে।

এদিকে গত ১৯ মার্চ ক্যামাক স্ট্রিটে অভিষেকের সঙ্গে বৈঠক করেন হুমায়ুন কবির। ওই বৈঠকের পর তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক বার্তায় বলেন, ‘১১ থেকে ১৮ মার্চ আমি ইউসুফ পাঠানের বিরোধিতা করেছিলাম। তবে এখন তৃণমূলের ঘোষিত প্রার্থীর ওপর আস্থা রাখছি। ইউসুফকে ভোট দেওয়ার জন্য আমি জনগণের কাছে আবেদন করব। আমি ইউসুফের পক্ষে প্রচার আব্যশই চালাব। এদিকে ইউসুফ কলকাতায় আসলেও হুমায়ুনের দুদিনের জন্য দিল্লি যাওয়ার কথা। হুমায়ূন দাবি করেন, রবিবার থেকে তিনি ইউসুফের পক্ষে প্রচার চালাবেন।

2019 সালের লোকসভা নির্বাচনে, কান্দি এবং বহরমপুর বিধানসভা অধীরকে রক্ষা করেছিল। বর্তমানে এই দুটি বিধানসভা কেন্দ্রে কংগ্রেসের একটিও বিধায়ক নেই। অন্যদিকে, শাসক তৃণমূলও বহরমপুর জয়ের জন্য মরিয়া। সংখ্যালঘু ভোটের কথা মাথায় রেখে গুজরাটের ইউসুফকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রে সম্ভবত বাজিমাত হচ্ছে তৃণমূলের। এই লড়াইয়ে মমতা, অভিষেক চরম ভাবে ভরসা রাখছেন ইউসুফের ওপরে।

মন্তব্য করুন