Russian su 57 fighter jet: রাশিয়ার SU-57 ফাইটার জেট রিভিউ 2024

Russian su 57 fighter jet:- রাশিয়ার SU-57 ফাইটার জেট সম্পর্কে সাম্প্রতিক খবর অনুযায়ী, ইউক্রেনের ড্রোন দ্বারা অন্তত দুটি আধুনিক রাশিয়ান SU-57 ফাইটার জেট আক্রান্ত হয়েছে, যা রাশিয়ার বিমান প্রতিরক্ষা কার্যকারিতা সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছে। এই আক্রমণে অন্তত দুটি SU-57 ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একটি SU-57 জেট শনিবার দক্ষিণ রাশিয়ার আস্ত্রাখান প্রজাতন্ত্রের আখতুবিনস্ক এয়ারফিল্ডে আঘাত পেয়েছে, যা ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় সীমান্ত থেকে প্রায় ৩৬৫ মাইল দূরে অবস্থিত।

SU-57 হল একটি দ্বৈত-ইঞ্জিন স্টেলথ মাল্টিরোল ফাইটার জেট, যা সুখোই সিস্টেম দ্বারা উন্নত করা হয়েছে। এটি স্টেলথ প্রযুক্তি, সুপারম্যানিউভারেবিলিটি, সুপারক্রুজ, ইন্টিগ্রেটেড অ্যাভিওনিক্স এবং বড় পেলোড ক্ষমতা সহ একটি মাল্টিরোল ফাইটার হিসেবে পরিচিত। এই জেটটি রাশিয়ান মিলিটারি সার্ভিসে মিগ-২৯ এবং এসউ-২৭ এর পরিবর্তে আসবে এবং এটি রপ্তানির জন্যও বাজারজাত করা হয়েছে। প্রথম প্রোটোটাইপ বিমান ২০১০ সালে উড়ান ভরেছিল, কিন্তু বিভিন্ন কাঠামোগত এবং প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণে এর উন্নয়ন বিলম্বিত হয়েছিল। বারবার বিলম্বের পর, প্রথম SU-57 ডিসেম্বর ২০২০ সালে রাশিয়ান এয়ারোস্পেস ফোর্সেসের সাথে সেবায় যোগ দেয়।

Russian su 57 fighter jet cost

রাশিয়ার SU-57 ফাইটার জেটের দাম সম্পর্কে তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে এর মূল্য ছিল প্রায় $42 মিলিয়ন ডলার। এটি একটি স্টেলথ মাল্টিরোল ফাইটার জেট এবং এর উন্নয়ন ও উৎপাদন খরচ অনেক বেশি। এই জেটটির দাম এত বেশি হওয়ার কারণ হল এর উন্নত প্রযুক্তি এবং স্টেলথ ক্ষমতা। তবে, এই মূল্য সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তন হতে পারে এবং বিভিন্ন কারণে বৃদ্ধি বা হ্রাস পেতে পারে।

SU-57 এর অন্যান্য বৈশিষ্ট্য?

SU-57 ফাইটার জেটের কিছু অন্যান্য বৈশিষ্ট্য হলো:

স্টেলথ প্রযুক্তি: SU-57 এর ডিজাইন সামনের দিকে রাডার সিগন্যাল কমানোর উপর জোর দেয়, যা এটিকে শত্রুর রাডার থেকে আড়াল করে।

সুপারম্যানিউভারেবিলিটি: এটি বিমানের চলাচলের ক্ষমতা বাড়ায়, যা বিমানকে আরও নমনীয় করে তোলে।

সুপারক্রুজ: SU-57 সুপারসনিক গতিতে বিনা অতিরিক্ত জ্বালানি ব্যবহারে উড়তে সক্ষম।

ইন্টিগ্রেটেড অ্যাভিওনিক্স: এটি বিমানের বিভিন্ন সিস্টেমকে একত্রিত করে এবং পাইলটের জন্য তথ্য প্রদান করে।

বড় পেলোড ক্ষমতা: SU-57 এর অস্ত্র বহনের ক্ষমতা অনেক বেশি, যা এটিকে বিভিন্ন ধরনের মিশনে ব্যবহার করা যায়।

সেক্সটুপল রাডার: এটি একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য যা SU-57 কে একসাথে ৬০টি লক্ষ্য অনুসরণ করতে সক্ষম করে।

লেজার ডিফেন্স: এই প্রযুক্তি বিমানকে শত্রুর লেজার হুমকি থেকে রক্ষা করে।

এই বৈশিষ্ট্যগুলি SU-57 কে একটি অত্যন্ত উন্নত এবং বহুমুখী ফাইটার জেট হিসেবে পরিচিত করে তোলে। এটি বিমান যুদ্ধের পাশাপাশি স্থল এবং সামুদ্রিক আঘাতের জন্যও সক্ষম।

আরও কিছু তথ্য SU-57 সম্পর্কে

SU-57 ফাইটার জেট সম্পর্কে আরও কিছু তথ্য হলো:

উন্নয়ন: SU-57 প্রকল্পটি ১৯৯৯ সালে শুরু হয়েছিল, যা মিগ-২৯ এবং সু-২৭ এর আধুনিক এবং সাশ্রয়ী বিকল্প হিসেবে পরিকল্পিত ছিল।

প্রথম উড়ান: প্রথম SU-57 প্রোটোটাইপ বিমান ২০১০ সালের ২৯ জানুয়ারি উড়ান ভরেছিল।

স্ট্যাটাস: বিমানটি বর্তমানে উৎপাদনে রয়েছে এবং রাশিয়ান এয়ারোস্পেস ফোর্সেস এর প্রাথমিক ব্যবহারকারী।

পেলোড ক্ষমতা: এর সর্বোচ্চ পেলোড বহনের ক্ষমতা ৩৫,০০০ কেজি।

যুদ্ধ পরিসর: সুপারক্রুজ গতি ব্যবহার না করে এর যুদ্ধ পরিসর ৩৫০০ কিমি এবং সুপারসনিক গতিতে পরিসর ১৫০০ কিমি, যা সু-২৭ বিমানের দ্বিগুণ।

উইংস্প্যান: এর উইংস্প্যান ১৪.১ মিটার।

ইঞ্জিন: বিমানটি Izdeliye 117 বা AL-41F1 অগমেন্টেড টার্বোফ্যান দ্বারা চালিত এবং ভবিষ্যতের উৎপাদন ব্যাচগুলিতে নতুন Izdeliye 30 ইঞ্জিন সহ সজ্জিত করা হবে।

গতি: এটি অ্যাফটারবার্নার ছাড়াই ম্যাক দুই পর্যন্ত গতিতে উড়তে সক্ষম।

SU-57 এর এই বৈশিষ্ট্যগুলি এটিকে একটি অত্যন্ত উন্নত এবং বহুমুখী ফাইটার জেট হিসেবে পরিচিত করে তোলে, যা বিমান যুদ্ধের পাশাপাশি স্থল এবং সামুদ্রিক আঘাতের জন্যও সক্ষম।

SU-57 vs F35:

SU-57 এবং F-35 উভয়ই পঞ্চম প্রজন্মের স্টেলথ ফাইটার জেট, যেগুলি বিশ্বের সেরা বিমান বাহিনীগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত। এই দুটি বিমানের তুলনা নিম্নরূপ:

 

স্টেলথ ক্ষমতা: F-35 এর স্টেলথ ক্ষমতা SU-57 এর তুলনায় উন্নত, যা এটিকে রাডারে কম ধরা পড়ার সুবিধা দেয়।

সেন্সর এবং অ্যাভিওনিক্স: F-35 এর সেন্সর এবং অ্যাভিওনিক্স সিস্টেম অত্যন্ত উন্নত, যা পাইলটকে যেকোনো পরিবেশে কার্যকরভাবে বিমান চালাতে সাহায্য করে।

গতি এবং ম্যানিউভারেবিলিটি: SU-57 এর গতি এবং ম্যানিউভারেবিলিটি F-35 এর তুলনায় ভালো, যা এটিকে ডগফাইটে সুবিধা দেয়।

মূল্য: SU-57 এর মূল্য F-35 এর তুলনায় কম, যা এটিকে ক্রয় এবং পরিচালনায় অধিক সাশ্রয়ী করে তোলে।

এই দুটি বিমানের মধ্যে কোনটি ভালো তা নির্ভর করে বিভিন্ন পরিস্থিতি এবং মিশনের উপর। যেমন, F-35 দীর্ঘ পাল্লার যুদ্ধে এগিয়ে থাকতে পারে, অন্যদিকে SU-57 ডগফাইটে এবং দ্রুতগতির মিশনে ভালো করতে পারে। তবে, বাস্তবে এই দুটি বিমানের মধ্যে কোনটি জিতবে তা নির্ধারণ করা অনেক জটিল এবং অনেকটাই পরিবর্তনশীল উপাদান ও পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে। যেমন, পাইলটের দক্ষতা, বিমানের অবস্থান, আবহাওয়া এবং অন্যান্য কৌশলগত ফ্যাক্টরগুলি একটি বিমান যুদ্ধের ফলাফলে প্রভাব ফেলতে পারে। (Viral Barta)

News source:- Al Jazeera, Wikipedia

মন্তব্য করুন